শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

ব্রাজিলের ৭ গোল খাওয়ার এক দশক আজ

সংবাদের আলো ডেস্ক: জুলাই মাস এলেই আক্ষেপে পুড়তে হয় ব্রাজিল ভক্তদের। এই মাসটি যে সেলেসাওদের জন্য সুখকর নয় সেটি প্রমাণিত হল আবারো। কেন যেন জুলাই এলেই ছন্দ হারিয়ে ফেলে এক সময়ে শৈল্পিক ফুটবল খেলা দলটি। কাকতালীয়ভাবে আরেকবার ৭ জুলাই কোপা আমেরিকার কোয়াটার ফাইনালের শেষ ম্যাচে উরুগুয়ের কাছে হেরে ভক্তদের কাঁদিয়ে বিদায় নিয়েছে নেইমারবিহীন ব্রাজিল। এই পরাজয়টি বিগত জুলাইয়ের ঘটে যাওয়া ব্রাজিলের হতাশাগুলোকেও পুনরায় প্রতিফলিত করে। ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপে ৬ জুলাই কোয়ার্টার ফাইনালে বেলজিয়ামের বিপক্ষে হৃদয়বিদারক ২-১ গোলে হেরে যায়। ছন্দে থাকা ব্রাজিল সেই সময় শিরোপা জয়ের অন্যতম ফেবারিট হওয়ায় এই পরাজয়টি ব্রাজিল ভক্তদের কাছে বিশেষভাবে তিক্ত।

খেলা শুরু! স্টেডিয়ামে দর্শকরা তখনও নিজেদের সিটে ভালোভাবে বসেননি জোয়াকিম লো’র শিষ্যরা প্রথম থেকেই মরিয়া গোলের জন্য। ম্যাচের ১১ মিনিট চলছে। জার্মানির হয়ে প্রথম গোল করেন টমাস মুলার। চোখের সামনেই হলো ৫টি গোল! তাও আবার ম্যাচের ২৯ মিনিটের মধ্যে। জার্মানি ৫, ব্রাজিল ০! বিশ্বকাপ ইতিহাসেই কোনো সেমিফাইনালের প্রথমার্ধে ৫ গোল হয়নি।২৩ মিনিটে মিরোস্লাভ ক্লোসা দ্বিতীয় গোল করার পরই পাশের গ্যালারিতে গায়ে হলুদ জার্সি, গালে জাতীয় পতাকা আঁকা এক তরুণীকে দেখা যায় হাউমাউ করে কাঁদতে। পরের ৭ মিনিটের মধ্যে জার্মানি আরও ৩ গোল করে ফেলার পর সেই কান্না সংক্রামক হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে গোটা মারাকানা স্টেডিয়ামে।সেই ম্যাচে ক্লোসা, মুলার, ক্রুস এবং ওজিল; সবাই মিলে যেনো ব্রাজিলের সাথে মশকরা করছিলো। পাসিং ফুটবল দলগতভাবে কীভাবে খেলতে হয়, সেটাই যেন ব্রাজিলকে শেখাচ্ছিল জার্মানরা। বিশেষকরে, টনি ক্রুসের দ্বিতীয় গোলটি। ২৬ মিনিটে, ব্রাজিলের ডিফেন্ডারের থেকে বল কেড়ে নিয়ে আক্রমণে জার্মানরা। সেই গোলটি খুব সহজেই ৬ নম্বর জার্সির সামি কাদিরা করতে পারতেন। কিন্তু তিনি নিঃস্বার্থভাবে বলটি পাস দেন ক্রুসকে। বল পেয়ে ভুল করেননি ক্রুস।জার্মানির সেই বিজয়ী দলের খেলোয়াড় ম্যাটস হামেলস পরে জানিয়েছিলেন, তারা ইচ্ছা করেই বিরতির পর আর কোনো জাদুকরি খেলা খেলতে চাননি। তারা শুধু চেয়েছিলেন ম্যাচটি শেষ করতে।ম্যাটস হামেলস বলেন, ‘আমরা শুধু চেয়েছি খেলায় মনোযোগী থাকতে। খেলার মধ্যে সেলেসাওদের কোনোভাবেই অপমান করতে চাইনি। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, খেলার মধ্যে সিরিয়াস থাকতে হবে। তবে ব্রাজিলকে অপমান করা হয়, এমন কিছু থেকে বিরত থাকব। খেলার মধ্যে জয়-পরাজয় থাকবে। তবে প্রতিপক্ষকে সম্মান দেখাতে হবে। আমরা সে কাজ করেছি। দ্বিতীয়ার্ধের পর আমরা কোনো জাদুকরি খেলা দেখাইনি।’ ৯০ মিনিটের খেলা শেষে ম্যাচের স্কোরলাইন দাঁড়ায় ৭-১। খেলার শেষে জার্মানিরা সেলেসাওদের সান্ত্বনা দিয়েছিল। বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে জার্মানির জয়টি ছিল সর্বকালের সবচেয়ে বড় জয়। ব্রাজিলের হয়ে একমাত্র গোলটি করেছিলেন অস্কার।আজ ব্রাজিলের ফুটবলের ইতিহাসে সেই দুর্বিষহ দিনের এক দশক পূর্তি।

সংবাদের আলো বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো।

----- সংশ্লিষ্ট সংবাদ -----