বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

এনায়েতপুরে যমুনার পানি বাড়ার সাথে সাথে শুরু হয়েছে ভাঙন : বাস্তুহারা কয়েক হাজার মানুষ

আসাদুর রহমান, এনায়েতপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে গত কয়েকদিন ধরে যমুনা নদীর পানি বেড়েই চলেছে। এর মধ্যে গত কয়েকদিন ধরে পানি বাড়ার হার বেশি হওয়ায় যমুনা অধ্যুষিত নিন্মঞ্চলে বন্যা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এতে ছোট থেকে মাঝারি আকারের বন্যা হতে পারে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। পাশাপাশি বন্যার আগে থেকেই ভাঙ্গণ শুরু হয়েছে সিরাজগঞ্জ শাহজাদপুর উপজেলার জালালপুর এলাকায়। গত কয়েক দিনে ফসলি জমিসহ হারিয়েছে বসতবাড়ি।  সম্প্রতি বন্যার পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙ্গনের র্তীব্রতা আরও বেড়েছে। ইতোমধ্যেই বিলীন হয়েছে অসংখ্য ঘরবাড়ি। বাস্তুহারা হয়েছে কয়েক হাজার মানুষ।

মানবেতর জীবন যাপন করছে তারা। তবে সেখানে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার হবে বলে জানিয়েছেন কতৃপক্ষ। পাউবো সূত্রে আরও জানা যায়, জুন মাসের শুরুতে যমুনায় পানি বাড়তে শুরু করে। ৩ জুন থেকে অস্বাভাবিকভাবে পানি বাড়লেও এক সপ্তাহ পর কমতে থাকে। এরপর ১৮ জুন থেকে আবারও বাড়ছে যমুনার পানি। এদিকে এনায়েতপুর থানার জালালপুর ও খুকনী ইউনিয়নের যমুনা অধ্যুষিত এলাকায় কয়েক বছর ধরেই ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। এরই মধ্যে কয়েকটি গ্রামের প্রায় দুই শতাধিক বাড়িঘর ও ফসলি জমি নদীতে বিলীন হয়েছে। বাস্তুহারা ও নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন ভাঙনকবলিত অসংখ্য মানুষ। পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এসকল এলাকায় ভাঙ্গণও বেড়েছে।

ভাঙ্গন কবলিত এলাকাবাসীর অভিযোগ, নদীর তীরবর্তী এলাকায় কাজের নির্দিষ্ট সময় পার হয়ে গেলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শেষ না করায় দেখা দিয়েছে এই নদী ভাঙ্গন।  তাই পানি উন্নয়ন বোর্ড ও ঠিকাদারের গাফিলতিকেই দূষছেন স্থানীয়রা। তাই এখনই জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার দাবি ভাঙ্গন কবলিত এলাকাবাসীর। জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য মো: আলম এবং ২নং ওয়ার্ডের সদস্য মহির উদ্দিন জানান, প্রতি বছরের ন্যায় এবারোও নদী ভাঙন শুরু হয়েছে। এবার বর্ষার আগে থেকেই ভাঙ্গছে যা এখনো অব্যাহত রয়েছে। গত কয়েকদিনে বেশ কিছু ফসলি জমি এবং বসতবাড়ি ভাঙনের কবলে পরেছে।

ভাঙন থেকে এলাকাবাসীকে রক্ষা করতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের জরুরী প্রদক্ষেপ নিতে হবে। খুকনি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুল্লুক চাঁদ জানান, গত কয়েকদিনে ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন করেছি, তিনি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জন্য কিছু করার প্রতিশ্রুতি দেয়েছেন। এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান বলেন, জালালপুর এবং খুকনি ইউনিয়নে নদী ভাঙ্গণ রোধে বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলছে।

তবে ঈদের ছুটি থাকায় ভাঙ্গণ রোধে কোনও কাজ করা সম্ভব হয়নি। আপাতত ওই ভাঙ্গণ কবলিত এলাকায় জিও টিউব ফেলা শুরু করা হয়েছে। শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: কামরুজ্জামান জানান, আমরা ইতিমধ্যে বাস্তুহারা মানুষের লিষ্ঠ করে কিছু ত্রাণ পাঠানোর ব্যবস্থা করেছি এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে কথা বলে তীর রক্ষা কাজ দ্রুত করার অনুরোধ অনুরোধ করছি।

সংবাদের আলো বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো।

----- সংশ্লিষ্ট সংবাদ -----