মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

উল্লাপাড়ায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট যুদ্ধে এগিয়ে ঝর্ণা খাতুন

নিজস্ব প্রতিবেদক: উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলায় জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা। প্রার্থীরা জয় নিশ্চিত করার প্রত্যাশায় ভোটারদের দ্বারে দ্বারে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। বিগত সময়ের মহৎ কর্মকাণ্ডের প্রতিচ্ছবি ও ক্লিন ইমেজ ব্যক্তিত্বের গুণাবলীর সমন্বয়ে বর্তমানে অন্যান্য প্রার্থী থেকে জনপ্রিয়তা এবং হেভিওয়েট প্রার্থী হিসেবে সবার শীর্ষে রয়েছেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পার্থী মোছাঃ ঝরণা খাতুন। তার নির্বাচনী প্রতীক ‘সেলাই মেশিন’ মার্কা। ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে এ উপজেলায় আগামী (২১ মে) মঙ্গলবার ইভিএম’র মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এই উপজেলায় ৫জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ভোটারদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে ঝরণা খাতুনের ‘সেলাই মেশিন’ প্রতিকে। সরজমিনে দেখা যায়, জয়ের লক্ষ্যে তার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে প্রতিনিয়ত শোডাউন, গণসংযোগ, উঠান বৈঠক, পাড়া-মহল্লায় হেঁটে হেঁটে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করে ব্যস্ত সময় পার করছেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ঝরণা খাতুন। তিনি ছাত্রজীবন থেকেই আওয়ামী রাজনৈতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের অধীনে মহিলা কর্মমুখী শিক্ষার প্রশিক্ষক হিসেবেও সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেছেন। বিভিন্ন সূত্র মতে, ধারণা করা হচ্ছে অন্য সব প্রার্থী থেকে অনেক সুপরিচিত এবং মানবিক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে তাদের থেকে অনেক এগিয়ে আছেন ঝরণা খাতুন। উপজেলার সাধারণ ভোটাররা বলছেন, ঝরণা আপা শিক্ষিত, মেধাবী, পরিশ্রমী ও পরোপকারী একজন মানবিক মানুষ।

তিনি বিগত দিনগুলোতে নানাবিধ কার্যক্রম পরিচালনা করে আমাদের আস্থার জায়গায় স্থান করে নিয়েছেন। ভোটাররা আরও জানান, ‘আমাদের উপজেলা নারী জাগরণের অগ্রদূত ঝরণা আপা। আগামী (২১ মে) ‘সেলাই মেশিন’ মার্কায় ভোট দিয়ে আমরা সেটা প্রমাণ করে দিবো।’ এ বিষয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ঝরণা খাতুন বলেন, ‘আমার প্রিয় উপজেলাবাসীর ভালোবাসা ও প্রেরণায় আমি ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছি। আমার নির্বাচনী প্রতীক ‘সেলাই মেশিন’ মার্কা নিয়ে আমি জনগণের যে সাড়া পেয়েছি তাতে আমার উপজেলার সকলেই তাদের মহামূল্যবান ভোটটি আমাকে দিয়ে জয় নিশ্চিত করবে, ইনশাআল্লাহ্।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি যদি নির্বাচিত হতে পারি, তাহলে আমার অধীনস্থ উপজেলার (উল্লাপাড়া-সলঙ্গার) প্রত্যেকটি ইউনিয়নে শিক্ষার সু-ব্যবস্থা, অবহেলিত সড়ক, প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলা, মাদক নিয়ন্ত্রণ, বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ করবো, নারী উন্নয়নে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখব। এটাই আমার অঙ্গিকার।

সংবাদের আলো বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো।

----- সংশ্লিষ্ট সংবাদ -----

এই সপ্তাহের পাঠকপ্রিয়